আলু গাছের পচঁন রোগের কারণে বিপাকে চাষীরা

Estimated read time 1 min read


ফেব্রুয়ারী,১২,২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক:

আলু জমিগুলোতে ব্যাপক আকারে আলু গাছে পচঁন রোগ ছাড়িয়ে পরেছে। ঘনঘন ঔষধ স্প্রে করেও রোগবালাই হতে রক্ষা পাচ্ছেনা আলু চাষিরা। ফলে দূর্ভোগ যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছেনা আলু চাষীদের।

সরেজমিনে মুন্সীগঞ্জ এর কয়েকটি উপজেলার বেশ কিছু আলু জমি ঘুরে দেখা যায় বিশাল এলাকাজুড়ে জমির আলু গাছগুলোর পাতায় ঠোসা পরেছে। অনেক জমিতে আলু গাছের কান্ড পচেঁ গেছে। এর প্রতিরোধে দামী দামী ব্যান্ডের ঔষধ ব্যবহার করেও রোগবালাইয়ের হাত হতে চাষিরা আলু গাছগুলোকে রক্ষা করতে পারছে না ।

মুন্সীগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানাগেছে, এ বছর জেলায় মোট ৩৪ হাজার ৩৫৫ হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়েছে আলু।

টঙ্গিবাড়ী উপজেলার আউটশাহী, বলই, বালিগাওঁ, পাঁচগাঁও, মান্দ্রা, সদর উপজেলার বজ্রযোগীনি মামাসার, আটপাড়া, মহাকালী,লৌহজংয়ের গোয়ালীমান্দ্রা,কনকসা,কলমা,মালির অংক,শ্রীনগরের কুমারগাও,আড়িয়ল বিল,সিরাজদীখানের বালুচর,লতব্দী,শেকরনগর,বংরাগাতি,গজারিয়ার বালুয়াকান্দি,হোসেন্দী,বাউশিয়া এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে বিস্তির্ন আলু জমির গাছগুলোর পাতায় ঠোসা পরে রয়েছে অনেক জামির আলু গাছের কান্ড পচেঁ গাছগুলো মাটিতে মিসে গেছে। কৃষক দামী দামী ব্যান্ডের ঔষধ স্প্রে করছেন। ঔষধ কোম্পানীর লোকজনের শিখানো অনুযায়ী তারা জমিতে ঔষধ স্প্রে করছেন। তারপরেও ছড়িয়ে পরেছে রোগবালাই। সাধারনত নামী দামী ঔষধের ব্যান্ডগুলোতে ১২/১৫দিন পর পর ঔষধ স্প্রে করার কথা বলা থাকলেও কৃষকরা প্রতি সপ্তাহে ঔষধ স্প্রে করছেন। ঔষধ স্প্রে ছাড়াও জমি পরিস্কার এবং জমিতে সেচ প্রয়োগ কাজে ব্যাস্ত সময় পার করছেন তারা।

গ্রামের কৃষকদের সাথে কথা হলে তারা বলেন, প্রতি সপ্তাহেই ঔষধ স্প্রে করছি। তারপরেও আলু গাছে রোগ বেড়েই চলছে। ঔষধ কোম্পানীর লোকজন জমিতে এসে বিভিন্ন প্রদ্ধতিতে ঔষধ স্প্রে করতে পরামর্শ দিচ্ছে আমরা তাদের শিখানো প্রদ্ধতিতে ঔষধ স্প্রে করছি কিন্তু তারপরেও রোগ বালাই বেড়েই চলছে।

কৃষকরা আরো বলেন, এর আগে এ বছর আলু চাষ করতে গিয়ে মুন্সীগঞ্জের কৃষক দুদফা বৃষ্টিপাতের কারণে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একদিকে আলু বীজ পঁচে নষ্ট হয় অন্যদিকে বৃষ্টিপাতের কারণে আলু চাষ এক মাসের অধিক সময় বিলম্ব হয়। আলু চাষের জন্য নভেম্বর মাস উত্তম সময় হলেও এ বছর জানুয়ারি মাসের অর্ধেক সময় পর্যন্ত জমিতে আলু চাষ করতে হয়েছে

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ডা. মো. আব্দুল আজিজ প্রতিবেদককে বলেন, এ বছর আমাদের লক্ষ্যমাত্রা চেয়েও বেশি ৩৪ হাজার ৩৫৫ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ হয়েছে এ জেলায়। আমাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৩৪ হাজার ৩৪৬ হেক্টর। যখন আবহাওয়া খারাপ ছিলো ঘন কুয়াসা ও মেঘাচ্ছন্ন আবাহাওয়া ছিলো তখন আমাদের আলু গাছের গ্রো তেমন না থাকায় রোগ বালাই গাছগুলোকে আক্রান্ত করতে পারেনাই। এখন আবহাওয়া ভালো কিন্তু তারপরেও যদি রোগবালাই বা পচঁন রোগে আলু গাছ আক্রান্ত হয় তাহলে একরোভেড এমজেড অথবা সিকিউর জাতীয় ঔষধগুলো সপ্তাহে একবার ভালোভাবে পুরো আলু গাছ ভিজিয়ে স্প্রে করতে হবে। আর যদি গাছ পচঁন রোগে আক্রান্ত না হয় তবে ডায়থেনএম-৪৫, একরোভেট এম-৪৫ জাতীয় ঔষধগুলো স্প্রে করার কথা বলেন কৃষকদের প্রতি।

www.bbcsangbad24.com

আরও দেখুন আমাদের সাথে......

More From Author